টাইম মেশিন

2
351

সময় সম্পর্কে আমাদের ধারণা আইনস্টাইন পাল্টে নিয়ে গিয়েছিলেন। এক সময় ধারণা করা হতো সময় সবার জন্য এক । আমার বয়স যদি এক বছর বাড়ে তাহলে আমার বন্ধু আমার পরিচিত সব মানুষজন এমনকি অপরিচিত সব মানুষ জনের বয়স এক বছর বেড়ে যাবে এরকম কিছু চিন্তা করা হতো | কিন্তু আইনস্টাইন দেখিয়েছেন সেটা সত্যি নয়,যে মানুষটি বেশি ছোটাছুটি করছে তার বয়স একটু হলেও কমবে বেড়েছে,কারণ সময় সবার জন্য এক নয়,যার যার সময় তার  কাছে, আমরা ধরতে পারিনা কারণ পৃথিবীর মধ্যে যে সকল মানুষগুলোর ছোটাছুটি করছেতাদের গতিবেগ খুবই কম অর্থাৎ বলা চলে খুবই ন্যূনতম গতি তাদের, সুপারসনিক প্লেন এ বড়জোড়া শব্দের চেয়ে দ্রুত গতিতে যেতে পারে|কিন্তু সময়ের এই ব্যাপারটা চোখে পড়তে হলে একজনকে আলোর বেগের কাছাকাছি ছোটাছুটি করতে হবে | একজন মানুষ আলোর বেগের কাছাকাছি যেতে পারে না কিন্তু অনেক মহাজগতিক কণা সহজে সেটা পারেএর সবচেয়ে চমকপ্রদ উদাহরণ হচ্ছে মিউওন,মহাজগতিক কনা বায়ুমণ্ডলের উপরে আঘাত করেএই মিলনের জন্ম দিয়ে থাকে| মিউওনের আয়ু খুবই কম হয়ে থাকে|কম সময়ের ভেতর একটা মিলনের পুরো বায়ুমণ্ডল ভেদ করে পৃথিবীর পৃষ্ঠ উপস্থিত হওয়ার কোন উপায় নেই কিন্তু এটি সব সময় ঘটে থাকে,যেটা বোঝা আমাদের জন্য অনেক কষ্টসাধ্য ব্যাপার| এই কষ্টসাধ্য ব্যাপারটিকে আইনস্টাইন খুব সহজেই বুঝিয়ে দিয়ে গিয়েছেন | বায়ুমণ্ডলের পৃষ্ঠ থেকে পৃথিবীপৃষ্ঠে আসতে নিয়নের যে সময়টুকু লাগেতার ব্যাখ্যা আইনস্টাইন খুবই সহজ ভাবে দিয়ে গেছেন

নিউ ওয়ান তার হিসেবে বেঁচে থাকে অতিক্ষুদ্র সময়,কিন্তু মিউনিয়েরে ক্ষুদ্র সময়ের সাথে আমাদের সময়ের অনেকটা পার্থক্য রয়েছে| যেটা আমাদের সময়ের তুলনায় অনেক দীর্ঘ সময়|এই সময়ের মধ্যে মেয়র খুব সহজেই বায়ুমণ্ডল পৃষ্ঠ থেকে পৃথিবীপৃষ্ঠে খুব সহজে চলে আসতে পারে |

সময় সম্পর্কে আমাদের কৌতুহল দীর্ঘ সময় ধরে|টাইম মেশিন দ্বারা সময় পরিভ্রমণ সম্ভব কিনা এ নিয়ে অনেকেরই প্রশ্ন রয়েছে| সময় পরিভ্রমণ করে ভবিষ্যতে চলে যাওয়া বা পূর্বের অবস্থায় যাওয়া তুলনামূলকভাবে অনেকটাই সহজ| কেউ যদি একটা মহাকাশযানে করে প্রচন্ড বেগে প্রায় 6 ঘন্টা ভ্রমণ করে কোথায় যায়এবং তারপর দিক পরিবর্তন করে পৃথিবীতে আসে তাহলে সে দেখতে পাবেসে প্রায় 10 বছর সময় কাটিয়ে ফেলেছে এই ভ্রমণের মাধ্যমে| এটি কোন কল্পনা কাহিনী নয় এটি বিজ্ঞানী আইনস্টাইনের”স্পেশাল থিওরি অফরিলেটিভিটির ভবিষ্যৎবাণী”|

কিন্তু অতীতে যাওয়া কি আদৌ সম্ভব| শুনে অবিশ্বাস্য মনে হতে পারে কিন্তু টাইম মেশিনে করে সময় পরিভ্রমণ করার ওপরে একাধিক বৈজ্ঞানিকগবেষণাপত্র লেখা হয়েছে|  এ বিষয়ের উপর একটা গবেষণা পত্র লিখেছেনএকজন পদার্থবিজ্ঞানী {Wormaholes,Time Machines,and the weak Energy Condition,Physical Review,Le Hers,61,1446,1488জেটি সময় পরিভ্রমণ এর মত একটি বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীর বিষয়কে বৈজ্ঞানিক বিষয়ে পরিণত করেছে।

সময় পরিভ্রমণ করে অতীতে বা ভবিষ্যতে যাওয়ার বিষয়টি বোঝার আগে ওয়ার্ম হোল বিষয়টি আগে জানতে হবে|ওয়ার্ম হোল হচ্ছে বিশ্বব্রহ্মাণ্ডেরদুটি ভিন্ন ভিন্ন জায়গায় ভেতরেএকটি শর্টকাট | বিষয়টি ত্রিমাত্রিক জগৎ হিসেবে বিবেচিত হয়।

ওয়ার্ম হোল বিষয়ে আমরা পরবর্তীতে আলোচনা করবো

লেখক : Mehedi Hasan

2 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here