শীতকালে নবজাতক শিশুকে সুস্থ রাখার উপায় সমূহ

7
431

মহান সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টির সেরা জীব হচ্ছে মানুষ l তাই মানুষকে বলা হয় আশরাফুল মাখলুকাত l

পৃথিবীতে প্রতিদিন হাজারো শিশু জন্মগ্রহণ করে lএই শিশুটিকে পৃথিবীতে আসতে অনেক সংগ্রাম করতে হয়l মাতৃভূমি থেকে শুরু করে পৃথিবীতে আসা পর্যন্ত অনেকটা রাস্তা পেরিয়ে একটি শিশুকে পৃথিবীতে আসতে হয় lআর একটি শিশুকে জন্ম দিতে একটি মায়ের এক শিকার করতে হয় সেটা সেই মা ছাড়া আর কেউ বলতে পারেনা lআর আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎlঅতএব তাদের সুস্থতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ l

সদ্য জন্ম গ্রহণ করা শিশু থেকে শুরু করে জন্মের 28 দিন পর্যন্ত শিশুকে সাধারণত নবজাতক শিশু বলা হয়ে থাকে lএকজন নবজাতকের সবথেকে বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে পৃথিবীর সাথে খাপ খাইয়ে নেয়া lএকজন নবজাতক শিশু যখন জন্মগ্রহণ করে তখন তার শরীরের বিভিন্ন অংশ যেমন হাত ,পাকস্থলী ,মস্তিষ্ক ও অন্যান্য অঙ্গসমূহ পূর্ণাঙ্গভাবে থাকেনা lএই কারণে একটি নবজাতকের যত্ন নেওয়া আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিশেষ করে আমাদের দেশে শীতকালে নবজাতকের যত্ন গুরুত্ব সহকারে নেওয়া উচিত lকারণ শীতকালে রোগব্যাধির পরিমাণ একটু বেড়ে যায় lএজন্য শিশুকে সুস্থ রাখার জন্য আমাদেরকে শীতকালে অনেক দায়িত্বশীল হতে হবে l

আসুন আমরা একটি নবজাতক শিশুকে শীতকালে সুস্থ রাখার উপায় সমূহ জেনে নেই 

1: শীতকালে নবজাতকের মা ও যারা নবজাতকের দেখাশোনা করবে তাদেরকে অবশ্যই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে l

2: নবজাতকের যত্ন নেওয়ার সময় খেয়াল রাখতে হবে যেন ঘরে কোন ঠান্ডা বাতাস না ঢোকে l

3: শিশুকে গরম কিন্তু আরামদায়ক পোশাক পরিধান করে রাখতে হবে , কোন অবস্থাতেই শিশুর গায়ের ওপর ভারি কম্বল বা লেপ দেওয়া যাবেনা l

4: শিশুকে ভালো ওয়েল দিয়ে মেসেজ করতে হবে , মেসেজ করার ফলে শিশুর শরীরে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পাবে l

5: জন্মের প্রায় তিন দিন পর থেকে শিশুকে প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে গোসল করাতে হবে বা তার গা মুছে দিতে হবে

6: গোসল শেষে শিশুর মাথা খুব দ্রুত মুছে দিতে হবে শিশুকে গোসল করানোর জন্য কুসুম কুসুম গরম পানি ব্যবহার করতে হবে l

7: নবজাতকের ত্বক মসৃণ রাখতে হবে আর এ জন্য ভালো মানের লোশন ব্যবহার করতে হবে l

8: শীতকালে জন্মগ্রহণ করা শিশুদের যাতে কোনো অবস্থাতেই জ্বর বা ঠান্ডা না লাগলে এদিকে খুব ভালো ভাবে খেয়াল রাখতে হবে কারণ জ্বর ঠান্ডা শিশুদের খুব খারাপ পরিস্থিতির দিকে নিয়ে যায় l তাই জ্বর বা সর্দির বিষয়ে পরিবারের সকলকে খেয়াল রাখতে হবে l

9: যদি কোনো অবস্থাতে শিশু অসুস্থ হয়ে পড়ে  তাহলে তাকে তার মায়ের দুধই পান করাতে হবে lকোন অবস্থাতেই অন্যকিছু খাওয়ানো যাবে না l

10: ডাইপার রেস থেকে খুব সাবধান হতে হবে l

11: শিশুর নাভি না পড়া পর্যন্ত নাভিতে যাতে কোনোভাবেই তেল বা পানি না লাগে সেদিকে পরিবারের সকল মানুষকে খেয়াল রাখতে হবে এবং ডাক্তারের দিক নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করতে হবে l

12: শিশুর যত্নে ক্ষেত্রে একটি ভুল ধারণা হলো,শিশুর গরম লাগছে ভেবে একদম খোলা অবস্থায় রাখা বা শীত লাগছে ভেবে কাপড় দিয়ে জড়িয়ে রাখা l

13: নবজাতক অবস্থায় শিশুর মুখের কাছে এসে আদর করা থেকে বিরত থাকা l

14: বাইরে থেকে এসে হাত-মুখ না ধুয়ে শিশুর ঘরে প্রবেশ করা থেকে বিরত থাকা l

একটি শিশু একটি পরিবারে নিয়ে আসে অনাবিল আনন্দ আর এই আনন্দটাকে ধরে রাখতে আমাদের সকলকে সতর্ক হতে হবে lসবাই মিলে একটি শিশুর পরিপূর্ণ যত্ন নেওয়ার চেষ্টা করতে হবে lতাহলে একটি নবজাতক শিশু বেড়ে উঠবে নিরাপদ ভাবে lতাহলে এবার একটি শিশুকে শীতকালে সুস্থ রাখুন নিশ্চিতভাবে l

7 COMMENTS

  1. фитнес резинки цена вінниця
    сколько стоит фитнес резинка
    купить фитнес резинку в одессе
    фитнес резинки александрия
    купить на троещине фитнес резинки
    фитнес ризинки купить

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here