ঘুমানোর সময় নেই অনন্যা পান্ডের

0
76

অভিনেত্রী হতে চেয়েছিলেন অনন্যা পান্ডে। অভিনয়ই ২১ বছর বয়সী এই তারকার সবকিছু। তাই নাওয়া-খাওয়া ভুলে দিন রাত এক করে টানা ২৩ ঘন্টা শুটিং করলেন এই চাংকি পান্ডে কন্যা।

 

এখনো পর্যন্ত মাত্র দুটি ছবি মুক্তি পেয়েছে অনন্যার। কারন জোহরের ‘স্টুডেন্ট অব দ্য ইয়ার টু’ ছবির মাধ্যমে ২০১৯ সালে বলিউডে আত্মপ্রকাশ করেন তিনি। সঙ্গে ছিলেন টাইগার শ্রফ এবং তারা সুতারিয়া। শুরুটা মোটেই আশানুরূপ হয়নি অনন্যার। বক্সঅফিসে মুখ থুবড়ে পড়ে ছবিটি। আর সমালোচকেরা তো এটাকে সিনেমা বলতেই নারাজ।

 

এরপর অনন্যাকে কার্তিক আরিয়ানের সঙ্গে রোমান্স করতে দেখা যায় ‘পতি পত্নি অর ও’ ছবিতে। এই জুটি ছাড়াও মুদাসার আজিজ পরিচালিত ছবিটিতে আরও ছিলেন ভূমি পেড়নেকার। খুব অল্প সময়ে বলিউডে নিজের জায়গা বানিয়ে নিয়েছেন। ৯০ লাখ ভক্ত তাকে ফলো করে ইনস্টাগ্রামে।

 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হামেশাই নানা চর্চায় উঠে আসেন তিনি। এই মুহূর্তে ব্যস্ত তার আগামী ছবি ‘খালি পিলি’ এর শুটিংয়ে। ছবিতে নিজের চরিত্রের মতো হয়ে উঠতে চেষ্টার কোনো ত্রুটিই রাখছেন না এই নবাগতা। ‘খালি পিলি’ ছবিতে মুম্বাইয়ের চলতি ভাষা বলতে হবে অনন্যা এখন এই ভাষার পাশাপাশি এর বাচনভঙ্গি রপ্ত করার চেষ্টা করছেন। ভারতীয় বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী এই বলিউড অভিনয়শিল্পী টানা ২৩ ঘণ্টা শুটিং করছেন। এমনকি এর পাশাপাশি তিনি প্রতিশ্রুতি মত বিভিন্ন অনুষ্ঠানেও শামিল হয়েছেন। না খেয়ে, না ঘুমিয়ে পেশাদারিত্বের পরিচয় দিয়ে প্রশংসা কুড়িয়েছেন।

 

সিনেমা ছাড়াও সমানতালে অন্যান্য কাজও করছেন। সম্প্রতি অনন্যা সকাল আটটায় শুরু করেন ‘খালি পিলি’ ছবির শুটিং। পরের দিন সকাল পর্যন্ত এই নায়িকা শুটিং করে গেছেন। এভাবে টানা ২৩ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে শুটিং করে যান অনন্যা।

 

দিন-রাত শুটিংয়ে ব্যস্ত থাকা সত্ত্বেও তিনি চুক্তি অনুযায়ী অন্যান্য কাজগুলো খুব সুন্দর ভাবে সামাল দিচ্ছেন। এত ব্যস্ততার মাঝেও অনন্যা তার আগামী ছবির চিত্রনাট্য বাছাইয়ের কাজ শুরু করে দিয়েছেন। ‘খালি পিলি’ ছবির শুটিং শেষ হওয়ার পরপরই শুরু করে দেবেন তিনি তার নতুন ছবির কাজ।

 

পারভেজ শেখ পরিচালিত ‘খালি পিলি’ ছবিতে অনন্যার বিপরীতে দেখা যাবে ‘বিয়ন্ড দ্য ক্লাউডস’ ও ‘ধড়ক’ খ্যাত ঈশান খট্টরকে। এছাড়া পরিচালক শকুন বাত্রার নতুন একটি ছবিতে স্বাক্ষর করেছেন অনন্যা। এই ছবিতে তিনি ছাড়া আরও আছেন ‘গাল্লি বয়’ খ্যাত সিদ্ধান্ত চতুর্বেদী এবং দীপিকা পাড়ুকোন।