চুলের যত্নে করণীয় কাজ

0
138

মিশ্র আবহাওয়ার কারণে তাপমাত্রা এখন হালকা গরম ও শীতের দখলে। পাল্টে যাওয়া ঋতুতে ঝলমলে আর প্রাণবন্ত চুল পেতে প্রয়োজন সঠিক চুল চর্চা। এ সময়ে অনেক ক্ষেত্রেই চুল তার চিরাচরিত রূপ হাড়ায়। চুলের গোড়া ঘেমে যায়, চুল আঠালো হয়ে যায়। ফলে মাথার ত্বকে সংক্রমণ দেখা দেয়। শুরু হয় চুল পড়া। চুলের ডগা ফেটে যাওয়া, খুশকি হওয়া, চুল ভেঙ্গে যাওয়া, রুক্ষ হওয়াসহ হাজারো সমস্যা দেখা দেয়।

 

চুল যদি অনেক বেশি অমসৃণ হয়, তাহলে আপনি চুলের স্পা করাতে পারেন। চুলে চকচকে ভাব আনার জন্য প্রোটিন ট্রিটমেন্টও খুব ভালো একটি যত্ন। এসময়ে চুলের ডগা ফেটে যাওয়া রোধ করতে তেল মালিশ ট্রিটমেন্ট নিতে পারেন। রূপবিশেষজ্ঞ শারমিন কচি দিয়েছেন কিছু প্রয়োজনীয় পরামর্শ, এই গরম এই ঠান্ডার সময়টুকুতে বাড়তি বাড়িতে বানানো প্রাকৃতিক ভাবে তৈরি প্যাক যাওয়া ব্যবহার করতে পারেন। চুলের ধরন বুঝে এ ধরনের চুলের প্যাক বানাতে পারেন ঘরে বসেই।

 

সাধারণ চুলঃ

টক দই, পাতলা করে কাটা পাকা কলা, এক চামচ মধু, ২ টেবিল চামচ আমলা পাউডার, পরিমাণমতো শিকাকাই ও মেথি পাউডার মিশিয়ে প্যাক তৈরি করুন।

 

ব্যবহারঃ

প্রথমে চুল হালকা গরম তেল দিয়ে মালিশ করে নিন। তৈরি করা প্যাক লাগিয়ে কুড়ি মিনিট রেখে দিন। শ্যাম্পু দিয়ে মাথা ভালোভাবে ধুয়ে চুলের কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। এই প্যাকটি সপ্তাহে ২-৩ বার ব্যবহার করতে পারেন। চুল থাকবে মসৃণ ও সুন্দর।

 

তৈলাক্ত চুলঃ

১ টেবিল চামচ আমলকির গুঁড়ার সঙ্গে আধা কাপ টক দই মিশিয়ে নিন। মিশ্রণ তৈরি করে ভালো করে পুরো মাথায় লাগিয়ে নিন। খেয়াল রাখুন, প্যাকটি যেন চুলের গোড়া পর্যন্ত যায়। কুড়ি পঁচিশ মিনিট রেখে চুল শ্যাম্পু করে নিন। সপ্তাহে দুবার ব্যবহারে চুল পড়া বন্ধ হবে। চুল হবে সুন্দর আর ঝরঝরে।

 

রুক্ষ চুলঃ

অর্ধেক কলার সঙ্গে ডিমের কুসুম ও এক টেবিল চামচ লেবুর রস মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। কুড়ি মিনিটের জন্য চুলে লাগিয়ে তারপরে ধুয়ে ফেলুন। এতে চুলের রুক্ষভাব দূর হবে ।

 

শেষকথাঃ

 

সপ্তাহে কয় দিন শ্যাম্পু করা উচিত, কি ধরনের শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হবে- বিষয়গুলো অনেকেই জানেন না। চুলের সঙ্গে সামঞ্জস্যহীন শ্যাম্পু ব্যবহার করার কারণে চুলের আরো ক্ষতি করে ফেলেন। তাই নিজের চুলের ধরনের সঙ্গে মিলিয়ে ভালো একটি শ্যাম্পু বেছে নিন। শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনার ব্যবহারে চুল ঝরঝরে হয়ে ওঠে। কেনা কন্ডিশনার ব্যবহার করতে চায় না করতে চাইলে, এক মগ পানিতে লেবুর রস দিয়েও চুল ধুয়ে নিতে পারেন। তবে কন্ডিশনার ব্যবহারের ক্ষেত্রে চুলের গোড়া ও মাথার ত্বকে না লেগে থাকে সেটা খেয়াল রাখতে হবে।

 

মাথায় তেল লাগানো বা শ্যাম্পু করার সময় আঙ্গুল দিয়ে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে মালিশ করুন। মাথার ত্বকের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া দিনে কয়েকবার মোটা দাঁতের চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়ানোর পরামর্শ দিলেন শারমিন কচি। চুল সব সময় পরিষ্কার রাখুন। ভেজা চুল আঁচড়াবেন না। সপ্তাহে অন্তত ৩-৪ দিন শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। চুলের কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। সপ্তাহে তিন-চার দিন গরম তেল মাথায় মালিশ করতে পারেন। এতে চুলের উপকার হয় । খুশকির জন্য পেঁয়াজের রস দিয়ে চুলের গোড়া মালিশ করতে পারেন। পেঁয়াজের রস দিয়ে চুলের গোড়া মালিশ করলে চুলের গোড়া শক্ত হয়।