পথচারীর ফেলে দেওয়া চুইংগামে কি শিল্পকর্ম হচ্ছে

0
62

যুক্তরাজ্যের লন্ডনের টেমস নদীতে বানানো সেতুর পদচারী অংশে দেখা গেল নিবিষ্ট মনে কিছু করছেন একজন। পাশের ইস্পাতে লাগানো উজ্জ্বল বর্ণের ছোট ছোট শিল্পকর্ম । এসব শিল্পকর্ম মুদ্রার আকারের মতো। ভাল করে খেয়াল না করলে মানুষ বুঝতেই পারবে না এসব আসলে কি। আর ভালোভাবে খেয়াল করলেও বোঝা কঠিন যে এগুলো আসলে পরিত্যক্ত চুইংগাম দিয়ে বানানো শিল্পকর্ম ।

 

চলার পথে রাস্তাঘাটে মানুষ থেকে চুইংগাম ফেলে। সেগুলো সংগ্রহ করে নানা কায়দায় এ শিল্পকর্মগুলো যিনি তৈরি করেন, তার নাম বেন উইলসন। পথচারীরা চলতি পথে যেসব চুইংগাম ফেলে যায়, সেগুলো সংগ্রহ করেন ৫৭ বছর বয়সী এই শিল্পী । ১৫ বছর ধরে তিনি এ কাজ করে আসছেন। পরিত্যক্ত চুইংগাম দিয়ে ছোট ছোট ডায়াস বানিয়ে তাতে ছবি আঁকেন তিনি।

 

মনে হতে পারে, বেন উইলসনের এটা খামখেয়ালি। বিষয়টা তা নয়। এটা শখের বশে করা কোন কাজ নয়। শিল্পের একটি ধারা তিনি বানিয়েছেন। আর সেটার প্রতি তিনি খুবই মনোযোগী। বেন উইলসন এটাকে রিসাইক্লিং এর পাশাপাশি শিল্পের একটি ধরন বলেই মনে করেন। চুইংগামের ডায়াসে আঁকতে আঁকতে বার্তা সংস্থা এএফপিকে তিনি বলছিলেন, ‘আমি পরিত্যক্ত ময়লাকে রূপান্তর করে শিল্পের রূপ দিচ্ছি। রিসাইক্লিং যেমন হচ্ছে, শিল্পও হচ্ছে’।

 

টেমস নদীর ওপরে সেতুর হাঁটাহাঁটির অংশের ইস্পাতের উজ্জ্বল রঙের শিল্পকর্মগুলো শোভা ছড়াচ্ছে । তুলির আঁচড়ে চুইংগামের ডায়াসে বেন উইলসন ফুটিয়ে তুলেছেন নানা দৃশ্য । উত্তর লন্ডন থেকে আসা এই শিল্পী শুরুতে কাঠ খোদাই করে নকশা করতেন। পরে তিনি চুইংগাম নিয়ে কাজ শুরু করেন। তার কাজ অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে। এখন তাকে লোকে ‘চুইংগাম ম্যান’ হিসেবে চেনে।

 

বেন উইলসন এর কাজটা বেশ জটিল। প্রথমে তিনি রাস্তা-ঘাট সহ আশপাশের এলাকা থেকে পুরানো চুইংগাম সংগ্রহ করেন। এরপর রংসহ আরো উপাদান দিয়ে সেটি গলিয়ে নেন। ডায়াস বানান। এরপর সেটিতে ফুটিয়ে তোলেন নানা ছবি। এ কাজই এখন তার ধ্যান-জ্ঞান । জীবনধারণের জন্য কিছু গ্যালারির সঙ্গে কাজ করেন তিনি, তবে চুইংগাম শিল্পকর্ম নিয়ে না। অনেকেই তাকে তাদের সঙ্গে কাজ করতে বলেছেন। তবে তিনি তাতে রাজি হননি । পরিত্যক্ত চুইংগাম উজ্জ্বল সব শিল্পকর্মের পরিণত করার কাজটা তিনি একাই করতে চান। পৃথিবী আর পরিবেশের কাছে এটাই তার নিবেদন।