করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা

0
144

করোনা ভাইরাসের নানা ধরন রয়েছে। এর মধ্যে কোনো কোনোটি প্রাণঘাতী হয়ে উঠতে পারে। বর্তমানে চীন থেকে ছড়িয়ে পড়া নতুন করোনাভাইরাস তেমনই একটি ভাইরাস। এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসের সংক্রমণের বা কোভিড-১৯ রোগের কোন টিকা আবিষ্কৃত হয়নি। এই ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে ব্যক্তিগত সচেতনতার কোন বিকল্প নেই।

 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউ এইচও) তথ্যমতে, নতুন করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের পর লক্ষণ প্রকাশে সর্বোচ্চ ১৪ দিন পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। কোভিড-১৯ এর লক্ষণগুলো হলোঃ

শুকনো কাশির সঙ্গে জ্বর।

শ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা।

মাংসপেশিতে ব্যথা থাকতে পারে।

এক্ষেত্রে সংক্রমণ শুরু হয় জ্বর দিয়ে। এরপর শুকনো কাশি হতে পারে, যার এক সপ্তাহের মধ্যে শ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা দেখা দিতে পারে।

 

ঝুঁকিতে যারাঃ

যেকোন ফ্লু জাতীয় রোগে আনুষঙ্গিক রোগ যেমন- কিডনি, হার্ট বা লিভার ফেইলিওর, আগে থেকেই অসুস্থ বা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম এমন ব্যক্তি, অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস থাকলে এবং গর্ভবতী নারীরা ঝুঁকিতে থাকেন বেশি। নতুন করোনাভাইরাসের ক্ষেত্রেও এটি প্রযোজ্য। এক্ষেত্রে প্রবীণদের মৃত্যুর হার বেশি। শিশুদেরও ঝুঁকি কম নয়।

 

সংক্রমণ ঠেকানোর উপায়ঃ

করোনাভাইরাসের আক্রমণ ঠেকাতে ব্যক্তিগত সচেতনতা কোন বিকল্প নেই।

 

ড্রপলেট ইনফেকশন অর্থাৎ হাঁচি-কাশির মাধ্যমে রোগটি ছড়ায়। আক্রান্ত, সন্দেহজনক আক্রান্ত  ব্যক্তির সংস্পর্শে না আসাই এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো প্রতিরোধ। নিজেকে নিরাপদ রাখতে সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত যেকোন ব্যক্তি থেকে নিরাপদ দূরত্বে থাকুন।

আক্রান্ত ব্যক্তি ও পরিচর্যাকারীর মুখে বিশেষ মাস্ক পরতে হবে। কখনোই নাক-মুখ না ঢেকে হাঁচি-কাশি দেবেন না। ব্যবহৃত টিস্যু বা রুমাল যথাযথ জায়গায় ফেলতে হবে।

বারবার সাবান পানি বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার হাত পরিষ্কার করতে হবে। যেসব বস্তুতে অনেক মানুষের স্পর্শ লাগে, যেমন – সিঁড়ির রেলিং, দরজার নব, পানির কল, কম্পিউটারের মাউস বা ফোন, গাড়ির বা রিকশার হাতল ইত্যাদি ধরলে সঙ্গে সঙ্গে হাত পরিষ্কার করতে হবে।

মাছ মাংস ভালো করে সেদ্ধ করে নিতে হবে।

 

লেখকঃ অধ্যাপক খাজা নাজিম উদ্দিন (মেডিসিন বিশেষজ্ঞ)